যেসব কারণে বাদ পরলেন চট্টগ্রামের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা

bdwebhost24.com

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে চট্টগ্রামের ১৬ আসনে বিএনপি, জামায়াত, এলডিপি ও গণফোরামের মোট ১৯ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। বাতিলের তালিকায় বিএনপির বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতাও রয়েছেন। যদিও এসব আসনের অধিকাংশতেই বিএনপি-জামায়াতের বিকল্প প্রার্থী রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির মনোনয়ন পাওয়া সবার প্রার্থিতা টিকে গেছেন।

চট্টগ্রাম-১ (মীরসরাই) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী উপজেলা চেয়ারম্যানের নুরুল আমিনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে পদত্যাগপত্রের কপি জমা দিতে না পারার কারণে।

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী গিয়াস উদ্দীন কাদের চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ঋণ খেলাপির কারণে।

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সাবেক সাংসদ মোস্তফা কামাল পাশার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ৫৪ হাজার টাকার টিএন্ডটি বিল বকেয়া থাকায়।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মীর মো. নাসির উদ্দিন দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হওয়ায় ও তার ছেলে মীর মো. হেলাল উদ্দিন ঋণ খেলাপির কারণে প্রার্থিতা বাতিল হয়েছে।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সামীর কাদের চৌধুরীর মনোনয়পত্রও বাতিল করা হয় ঋণ খেলাপির কারণে। রিটানিং কর্মকর্তা জানান, ঢাকা ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক ও ন্যাশনাল ব্যাংক সামির কাদের চৌধুরীর কাছ থেকে ঋণ পাওনা রয়েছে।

চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী আবদুল আলিম ব্র্যাক ব্যাংক ও স্ট্যন্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংকে ঋণ খেলাপি হওয়ায় মনোনয়পত্র বাতিল করা হয়। এ ছাড়া আবু আহমেদ হাসনাত প্রাইম ব্যাংক ও লংকা বাংলা ফাইনান্সের ঋণ খেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়পত্রও বাতিল করা হয়। তবে আবু হাসনাত জানান, তার শুধুমাত্র ঋণ আছে লংকা বাংলা ফাইনান্সে।

চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী)আসনে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী মোহাম্মদ সামশুল আলমের বিভিন্ন ব্যাংকে শত শত কোটি টাকা ঋণ পাওনা থাকায় মনোনয়পত্র বাতিল করা হয়।

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী) আসনের বিএনপি বিকল্প প্রার্থী এরশাদ উল্লাহ ব্যাংক হিসাব না খোলার কারণে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমীর জাফর সাদেকের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এক শতাংশ ভোটারের তথ্যের গরমিল থাকায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে উপজেলা চেয়ারম্যান ও জামায়াতের নায়েবে আমীর মো. জহিরুল ইসলামের মনোনয়নপত্রটি বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। তিনি উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে মন্ত্রণালয় থেকে কপি আনতে না পারায় তার মনোনয়ন বাতিল করা হয়।

এ ছাড়া চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে গণফোরামের জানে আলম, চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে এলডিপির এয়াকুব আলী, চট্টগ্রাম-১৩ (আনোয়ারা) আসনে গণফোরামের নারায়ণ রক্ষিতের মনোনয়ন বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

বিভাগীয় কমিশনার জানিয়েছেন, মনোনয়ন বাতিল হওয়া প্রার্থীরা তিনদিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশনে আপিল করতে পারবেন।

bdwebhost24.com
সূত্রঃজাগোনিউজ
শেয়ার