শেষ মুহুর্তে নকলায় জমে উঠেছে ঈদের বাজার

মুহাম্মদ হযরত আলী :
দু’রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আযহা। তাই শেষ মুহুর্তে ঈদের বাজারে মানুষের প্রচুর সমাগম বাড়ছে। এই ঈদ উল আজহাকে ঘিরে যেমন কোরবানী পশু কেনায় ব্যস্ত তেমনই ব্যস্ত শেরপুরের নকলা শহরের প্রতিটি অভিজাত বিপণী কেন্দ্রগুলো। আর ত্রেতাদের আকৃষ্ট করতে সাজানো হয়েছে আকর্ষনীয় সাজে। অবস্থা এমন যে, প্রচন্ড গরম, কাঠফাটা রোদ উপেক্ষা করেও ত্রেতারা ভীড় করছে নকলার ঈদ বাজারে। সবচেয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কোরবানীর পশু কেনা নিয়ে, পশুর হাটে উপচে পড়া ভীড়। তারপরেও থেমে থাকেনি শহরের ওসমান ফ্যাশন, এসপি ফ্যাশন, আধুনিক, রাজ্জাক, লাছা, মনে রেখ ফ্যাশনসহ শহরের বিভিন্ন বিপনী বিতান গুলোতে ভীড় চোখে পড়ার মত।

ওসমান ফ্যাশনের সত্তাধিকারী ওসমান জানান, ঈদুল ফেতরের তুলানায় এই ঈদে পোশাক কম বিক্রি হলেও শেষ মুহুর্তে ক্রেতারা মোটামোটি ভীড় জমাচ্ছে, ছোট ছেলে মেয়েদের আবদার মেটাতে। আনারকলি, সুতাং কটন, কটি শাট, কুর্তি পাঞ্জাবীসহ বিভিন্ন কাপড় বেশি বিক্রি হচ্ছে।
অভিজাত মার্কেট গুলোতে দোকানীরা সাজিয়ে রেখেছে বাহারী সবধরনের পোষাক ও পণ্য। বিভিন্ন শ্রেণির পোষাক মানুষের চাহিদা বিবেচনা মাথায় রেখে দোকানে সাজিয়ে রাখা হয়েছে নতুন নতুন ডিজাইনের দেশি বিদেশী কাপড়। উঠতি বয়সের তরুণ তরুণীদের ভীড় লক্ষ্যনীয়।

প্রসাধনি, জুতা ও থান কাপড়ের দোকান গুলোতেও প্রচন্ড ভীড়। ফ্যাশন হাউজ ও তৈরী পোষাকের দোকানের সাথে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই কসমেটিকস্কের বিতান গুলো। তরুণ নারীদের পদচানায় মুখরিত যেন হয়ে উঠেছে ঈদ বাজার। তৈরী পোষাকের দোকানীরা জানায় ঈদ সন্নিকটে আসায় কেনাকাটা অনেকটা বেড়েছে, দিন দিন বিক্রি বাড়ছেই পোষাকের পাশাপামি কসমেটিকস্ দোকান গুলোতে। কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী নকল জুতা, প্রসাধনী, সেমাইসহ নানা পণ্য বাজারে আনতে পারেন এমন আশংকা করছেন অনেকেই। এছাড়া শেরপুর শহরসহ বিভিন্ন উপজেলা শহরে কতিপয় ব্যবসায়ী এক দরের নামে গলাকাটা লাভ করছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের মুখে মুখে শুনা যাচ্ছে। নি¤œ আয়ের মানুষগুলো ফুটফাতের দোকান গুলোতে ভীড় করছে। সদরের বাইরেও ঈদ বাজার জমে উঠেছে। অপরদিকে পবিত্র ঈদুল আযহার কোরবানীকে সামনে রেখে কামারীরাও বিভিন্ন দা, ছুড়ি, চাকু ইত্যাদি বানাতে ব্যস্ত সময় পাড় করছে। বিক্রির প্রতিযোগিতায় ফ্রিজ বিক্রেতারাও পিছিয়ে নেই। সব মিলিয়ে নকলায় ঈদের বাজার জমজমাট।

bdwebhost24.com
শেয়ার