রণবীর কাপুরের ক্যারিয়ারের পালে এবার ভালোই হাওয়া লেগেছে। বোম্বে ভেলভেট আর তামাশার মতো ছবি বক্স অফিসে ব্যর্থ হওয়ার পর গণভোটে মোটামুটি ঠিকই হয়ে গিয়েছিল, রণবীরের ক্যারিয়ার শেষ।

কিন্তু রণবীর ফিরতে জানেন। না হলে রাজকুমার হিরানি পরিচালিত সঞ্জুতে তার টিজ়ার দেখেই দর্শকরা তার প্রশংসায় মাতেন।

টিজারে বোঝা যাচ্ছে, সঞ্জয় দত্তের বায়োপিকে অভিনেতার প্রথম জীবন থেকেই গল্প শুরু করেছেন রাজু হিরানি।-খবর আনন্দবাজারপত্রিকা অনলাইনের।

সেখান থেকে বডি বিল্ডার সঞ্জু, অভিনেতা সঞ্জু, বেআইনি একে ফোর্টি সেভেন রাখা সঞ্জু, প্রেমিক সঞ্জু— চরিত্রের বাহার অনেক!

সঞ্জয়ের প্রতিটি রূপ, জীবনের প্রতিটি পর্যায় রণবীর এতটা সাবলীলভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন যে তাকে প্রশংসা না করে পারা যায় না।

১৬ কেজি ওজন বাড়িয়েছেন, পেশিবহুল চেহারা বানিয়েছেন, চুলের কায়দা বদলেছেন- এমনকি বদলে ফেলেছেন শরীরের ভাষা, চোখের চাহনিও। কোনো ফ্রেমেই বেমানান লাগছে না তাকে। প্রশিক্ষক কুনাল গির রীতিমতো গর্বিত রণবীরকে নিয়ে।

অথচ এই রণবীরকেই একদিন প্রাইভেট পার্টিতে কত অপমানই না করেছিলেন সঞ্জয়!

তখন সবে রাজু ছবির কাস্টিং ফাইনাল করেছেন। সঞ্জয় তার পর পরই রণবীর, রাজকুমার, ডেভিড ধাওয়ানদের নিজের একটা পার্টিতে ডাকেন। সেখানে আকণ্ঠ মদ্যপান করার পর স্বাভাবিকভাবেই ভারসাম্য হারান তিনি।

শোনা যায়, সেখানে সঞ্জয় বরফি নিয়ে ব্যঙ্গোক্তি করে রণবীরের উদ্দেশে বলেন, আমাদের প্রজন্ম যখন আর থাকবে না, তখন সব হিন্দি ছবির নাম হবে পেঁড়া, জিলিপি, ইমারতি। আমি রণবীরের জন্য একটা ছবি প্রযোজনা করতে চাই। নাম দেব লাড্ডু!

এখানেই শেষ নয়। রণবীরকে কাস্ট করে রাজু যে আসলে ভুল করেছেন, সেটিও নাকি তার কনিষ্ঠ অভিনেতার সামনেই তিনি বলে বসেন।

রণবীর সেদিন চুপ করেই ছিলেন। কিন্তু উত্তরটা বোধহয় দিলেন ছবির জন্য খেটে। একটা টিজারেই যেখানে পাবলিক পকেটে, সেখানে ছবি মুক্তি পেলে না জানি সাফল্যের কোন রকেটে চড়ে বসবেন কাপুর পরিবারের এই সন্তান, তা নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করা দায়

Facebook Comments
bdwebhost24.com