26.5 C
Sherpur
সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

রুশ জ্বালানি তেল আমদানি ৩৩ গুণ বাড়িয়েছে ভারত

বিশ্বের তৃতীয় বৃহৎ অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানিকারক...

বাড়ছে আবারো গ্যাসের দাম

সাত মাসের মাথায় আবারো গ্যাসের দাম বাড়ানোর...

সংসদ উপনেতা হিসেবে মন্ত্রীর পদমর্যাদায় মতিয়া চৌধুরী

গত ১২ জানুয়ারি রাতে সংসদ ভবনে আওয়ামী...

প্রেসক্লাব নালিতাবাড়ী নির্বাচন: ২৭ ইশতেহার ঘোষণা করলেন সাধারন সম্পাদক প্রার্থী মনির

নালিতাবাড়িপ্রেসক্লাব নালিতাবাড়ী নির্বাচন: ২৭ ইশতেহার ঘোষণা করলেন সাধারন সম্পাদক প্রার্থী মনির
- Advertisement -
- Advertisement -

স্টাফ রিপোর্টার: শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে “প্রেসক্লাব নালিতাবাড়ী” ২০২২-২০২৪ নির্বাচন সাধারণ সম্পাদক পদে মনিরুল ইসলাম মনির নির্বাচনী ২৭ ইশতেহার ঘোষণা করেন।যদি নির্বাচিত হয় তাহলে এইসব ইশতেহার সকলের সহযোগিতায় বাস্তবায়ন করবেন তিনি।শনিবার রাত ৯টায় তার ফেইসবুক আইডিতে তিনি এই ইশতেহারগুলো ঘোষণা করেন। তার ফেসবুকে নির্বাচনী ইশতেহারগুলো হুবুহু তুলে ধরা হলো:

আমার নির্বাচনী ইশতেহার, প্রিয় সহযোদ্ধা ও শুভানুধ্যায়ী, আপনারা জানেন একক প্রচেষ্টায় অনেকের ভালোবাসা এবং আস্থা অর্জন করে এ পর্যন্ত আমার পথচলা। যতটুকু সফল হয়েছি তা অবশ্যই নিজের নিষ্ঠা আর দায়িত্ববোধের পাশাপাশি অনেকের ভালোবাসা অর্জন আমার একমাত্র পুঁজি। আমি শূন্য থেকে উঠে এসে আমার দৃষ্টিকোণ থেকে আজ আমি পরিপূর্ণ।

আপনারা জানেন যে, একক প্রচেষ্টায় অনেকের ভালোবাসা নিয়ে নালিতাবাড়ীতে সর্বপ্রথম একটি সংবাদপত্র সরকারের নিবন্ধন নিয়ে প্রকাশনা চালিয়ে যাচ্ছি। এখনও পর্যন্ত সরকার অনুমোদিত নালিতাবাড়ীর একমাত্র সংবাদপত্র আপনাদের ভালোবাসার এবং ভালা লাগার ‘বাংলার কাগজ’। যা শেরপুর জেলা সদর ব্যতীত অন্য কোন উপজেলাতেও নেই। প্রিন্ট এবং ভার্চুয়াল ভার্সনে যা ইতিমধ্যেই ৯ বছরে পদার্পণ করেছে। নালিতাবাড়ীর মতো একটি পিছিয়ে পড়া উপজেলা থেকে একটি সংবাদপত্র টিকিয়ে রাখা কতো কঠিন তা একমাত্র এর কর্ণধার যারা তারাই বুঝেন। এরপরও টিকে রয়েছে আপনাদের ভালোবাসায়। কাজেই আমি বিশ্বাস করি, একইভাবে আপনাদের ভালোবাসা এবং সকল সহযোদ্ধার সহযোগিতায় প্রেসক্লাব হবে অতীতের চেয়ে অনেক বেশি সমৃদ্ধ। আমার একক অফিস যদি হয় পরিচ্ছন্ন এবং রুচিশীল তবে কেন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় প্রেক্লাবের পরিবেশ সকলের পছন্দনীয় হবে না? অবশ্যই হবে এবং অবশ্যই হবে। যদি আপনারা পাশে থাকেন

“পরিবর্তনের প্রত্যয়ে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ে, পাশে থাকুন পাশে রাখুন” এই অঙ্গীকার নিয়ে আমার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করতে যাচ্ছি। আমি এমন কোন ইশতেহার বা প্রতিশ্রুতি দিতে চাই না যা অবাস্তব বা অমূলক। যা বাস্তবে বাস্তবায়ন করতে পারব বলে বিশ্বাস করি তাই হবে আমার আগামী দিনের স্বপ্ন।

১। সম্মানিত শুভানুধ্যায়ী ও সহযোদ্ধা, আমি প্রথমেই যে অঙ্গীকার করতে চাই তা হলো, যদি আপনাদের ভালোবাসায় বিজয় অর্জিত হয় তবে ততক্ষণ পর্যন্ত আমি শপথ গ্রহণ করবো না যতক্ষণ পর্যন্ত না ন্যুনতম পরিবেশ সুন্দর করতে পারব। আমার প্রথম পদক্ষেপ হবে প্রেসক্লাবকে একটি সুন্দর পরিবেশে ফিরিয়ে আনা। ধূমপান মুক্ত, পরিচ্ছন্ন এবং সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের আগমণের একটি অন্যতম বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান হবে আপনাদের প্রেসক্লাব।

 

২। যেহেতু নালিতাবাড়ীতে প্রথমবারের মতো প্রেসক্লাবের এত আড়ম্বরপূর্ণ ও উৎসব-আমেজে নির্বাচন হতে যাচ্ছে। সেহেতু আমি নির্বাচিত হলে নির্বাচিত পরিষদের সকলের সহযোগিতায় আমাদের অভিষেক অনুষ্ঠান এবং স্থানীয় সাংবাদিকতায় বিশেষভাবে যারা ভূমিকা রেখেছেন তাদের সম্মানার্থে সম্মাননা প্রদান করে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

৩। আমি দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রেসক্লাবকে একটি সামাজিক ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে সহযোগী ও পূর্ণাঙ্গ সকল সদস্যকে নিয়ে পরামর্শমূলক সাধারণ সভা আহবান করা হবে।

৪। সাংবাদিকদের পেশাগত মানোন্নয়নে সহযোদ্ধাদের জন্য অপেক্ষাকৃত উত্তম গণমাধ্যমে কাজের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

৫। অনেকেরই নিজস্ব কম্পিউটার নেই, অনেকেরই বা পরিচালনায় দক্ষতা নেই। এ জন্য পর্যায়ক্রমে দুইটি কম্পিউটারের মাধ্যমে কম্পিউটার ল্যাব তৈরি করে সেখান থেকে সংবাদ তৈরি এবং পাঠানোর সু-ব্যবস্থা করা হবে।

৬। প্রেসক্লাবে একটি অনার বোর্ড স্থাপন করা হবে, যেখানে এ সংগঠনের সৃষ্টিলগ্ন থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালনকারী সকলের ছবি ও নাম শোভা পাবে।

৭। যেসব সহযোদ্ধা ইতিমধ্যেই মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় একটি দোয়ার আয়োজন ও তাদের স্মরণে একটি স্মরণ সভার আয়োজন করা হবে। একই সঙ্গে একটি সুভিনির বা স্মরণিকা প্রকাশ করা হবে।

৮। প্রেসক্লাব নির্দিষ্ট সময়ে সর্বসাধারণের সেবার জন্য খোলা রাখতে একজন লোক নিয়োগ করা হবে।

৯। নির্দিষ্ট ব্যক্তির করায়ত্ব কোন প্রতিষ্ঠান না বানিয়ে প্রেসক্লাবকে সার্বজনীন প্রতিষ্ঠানে রূপ দেওয়া হবে।

১০। সাংবাদিকদের সার্বিক সহায়তায় কল্যাণ তহবিল গঠন করা হবে। কল্যাণ তহবিলের অর্থ সাংবাদিকদের নানামুখী কল্যাণ ছাড়াও, সংবাদিকদের আপদকালীণ সহায়তা এবং সামাজিক সচেতনতা ও উন্নয়নমূলক কাজে ব্যয় করা হবে।

১১। সাংবাদিক তথা প্রেসক্লাবের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য আয় বর্ধনমূলক কাজের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এরমধ্যে দূরপাল্লার বাস সার্ভিস চালুসহ ভবিষ্যতে আরও কিছু অর্থনৈতিক চালিকাশক্তি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

১২। প্রেসক্লাবের নিজস্ব জায়গা এবং বহুতল ভবন তৈরি করা হবে। যে ভবনে আলাদা সেমিনার কক্ষ ছাড়াও মার্কেট তৈরি করা হবে।

১৩। প্রেসক্লাবে একটি মিনি রেস্ট হাউজের ব্যবস্থা থাকবে। যেখানে দুইটি বেড ও বাথরুমসহ অন্যান্য সুবিধা থাকবে। যাতে করে আমাদের অতিথি এবং সংবাদকর্মীগণ প্রয়োজনে রাত্রীযাপন করতে পারবেন।

১৪। সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে নিজস্ব বিদ্যুৎ ব্যবস্থার পাশাপাশি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতায় আনা হবে।

১৫। প্রতিবছর সপরিবারে আনন্দ ভ্রমণ বা পিকনিকের ব্যবস্থা করা হবে এবং সেইসাথে সাধারণ সভা সম্পন্ন করা হবে।

১৬। পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কেউ আক্রান্ত বা বাঁধাগ্রস্থ হলে সকলপ্রকার স্বার্থের উর্ধে গিয়ে তা মোকাবেলা করা হবে। একইসঙ্গে প্রেসক্লাবের অর্থায়নে মামলা বা এ জাতীয় সংকট মোকাবেলা করা হবে।

১৭। প্রতি ঈদে সংবাদকর্মীদের জন্য সামর্থ অনুযায়ী ঈদ বোনাসের ব্যবস্থা করা হবে।

১৮। অপেক্ষাকৃত অধিকতর দুর্নীতিগ্রস্থ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে ফিরে আসতে জনস্বার্থে উৎসাহিত করার পাশাপাশি প্রয়োজনে মিডিয়া এডভোকেসি এবং গণমাধ্যমে নিরপেক্ষভাবে অনিয়ম তুলে ধরা হবে।

১৯। সহকর্মীদের পেশাগত মানোন্নয়নে সুবিধাজনক সময়ে প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

২০। যেহেতু এটি একটি অভিজ্ঞ এবং শিক্ষিতের পেশা সে কারণেই অপেক্ষাকৃত দূর্বলদের নতুন করে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়নে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

২১। কাজের ধরণ এবং দক্ষতার মূল্যায়নে পর্যায়ক্রমে সহযোগী সদস্যদের পূর্ণাঙ্গ সদস্য পদ দেওয়া হবে।

২২। নির্বাহী পরিষদের সংখ্যা অনুযায়ী আলাদা ডেস্ক স্থাপন করা হবে।

২৩। পরিচ্ছন্ন বাথরুম এবং এসিসহ অন্যান্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সন্বিবেশিত করা হবে।

২৪। সহযোদ্ধাদের মেধাবী সন্তানদের জন্য প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে আলাদা ফান্ড গঠন করে উচ্চ শিক্ষায় সহযোগিতা করা হবে।

২৫। নির্দিষ্ট মেয়াদের পর গঠনতন্ত্র অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করে সসম্মানে দায়িত্ব হস্তান্তর করব। এক্ষেত্রে জোরপূর্বক পদ দখল করে বসে থাকব না।

২৬। ঊর্ধতন পরিষদের জন্য আলাদাভাবে তিনটি চেয়ার সংরক্ষিত করা হবে। যেন তারা প্রেসক্লাবে এসে সম্মানের জায়গায় সবসময় বসতে পারেন। অন্য কারও চেয়ার টেনে বসানোর প্রয়োজন না হয়।

২৭। নালিতাবাড়ীর উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির লক্ষ্যে সকলপ্রকার উদ্যোগ এবং উদ্যোক্তার সাথে সমন্বয় রেখে কাজ করা হবে। প্রেসক্লাব শুধু সংবাদকর্মীদের সংগঠন নয়, এটি হবে আলোকিত নালিতাবাড়ী গড়ার একটি বাতিঘর। সর্বোপরি সকলপ্রকার রাজনৈতিক ও পেশি শক্তির উর্ধে রেখে সর্বসাধারণের একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের নাম হবে প্রেসক্লাব।

উপরের সব প্রতিশ্রুতি পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন করা হবে যদি আল্লাহর রহমত ও সহযোদ্ধাদের ভালোবাসায় আমি বিজয়ী হতে পারি এবং নির্বাচিত পরিষদের আন্তরিকতা লাভ করতে সক্ষম হই। আমি দীর্ঘ সময় ধরে একাই দায়িত্বে থাকবো না, থাকবে আমার কাজ এবং উদ্যোগ। আমার দায়িত্ব পালন হবে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ভালোবাসা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে। কাজেই সকলেই আমার এসব স্বপ্ন পূরণে সহায়ক শক্তি হিসেবে সর্বশক্তি দিয়ে পাশে থাকবেন বলে বিশ্বাস করি। মানুষ হিসেবে আমি ভুলের উর্ধে নই। অতীতের সব ভুল ক্ষমা করে আসুন প্রেসক্লাব একটি সমৃদ্ধির বাতিঘরে বাস্তবায়ন করি।

আপনাদের স্নেহ ও ভালোবাসায় ধন্য

মনিরুল ইসলাম মনির

সাধারণ সম্পাদক পদ প্রার্থী

প্রেসক্লাব

নালিতাবাড়ী, শেরপুর।

- Advertisement -
spot_img

অন্যান্য সংবাদ সমূহ

Check out other tags:

জনপ্রিয় সংবাদ স্মূহঃ