25.6 C
Sherpur
শনিবার, জুলাই ২, ২০২২

খালেদের প্রথম ফাইফার

টেস্ট ক্যারিয়ারে এই প্রথমবার ৫ উইকেটের দেখা...

পদ্মা সেতুতে দুর্ঘটনায় আহত ২ যুবক মারা গেছেন

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত দুই যুবক মারা গেছেন।...

এক উপজেলায় ১৩ নারী দায়িত্বপালন করছেন

নকলাএক উপজেলায় ১৩ নারী দায়িত্বপালন করছেন
- Advertisement -
- Advertisement -

স্টাফ রিপোর্টার: নানা প্রতিকূলতা ও বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে অগ্রযাত্রার পথে এগিয়ে চলছেন নারীরা। এই যুগে নারী শুধু বধূ, মাতা কিংবা কন্যা নয়; পরিবার, সমাজ ও দেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রার সমান অংশীদার। পুরুষের পাশাপাশি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কারিগর। সামাজিক, প্রশাসনিক ও রাজনৈতিকসহ সব ক্ষেত্রেই নারীর অগ্রযাত্রা আজ দৃশ্যমান।

এরই ধারাবাহিকতায় শেরপুরের নকলায় সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ সামলাচ্ছেন ১৩ নারী। বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে কর্মক্ষেত্রে সফল তারা। দক্ষতার সঙ্গে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের দৈনন্দিন কাজ করছেন। বাল্যবিয়ে ও যৌতুক ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধের পাশাপাশি নিজ নিজ উপজেলাকে মাদক-দুর্নীতি-জঙ্গিমুক্ত রাখতে ভূমিকা রাখছেন। শিক্ষা ক্ষেত্রেও বিশেষ অবদান রাখছেন এসব নারী।

উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন ফরিদা ইয়াসমীন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয়ে দায়িত্ব পালন করছেন ৬ নারী চিকিৎসক। তারা হলেন, সহকারি সার্জন ডা: উম্মে সালমা আঁখি, ডা: মনিরা ইয়াসমীন মিনি, ডা: আইরিন জাহান প্রীতি, ডা: ইয়ামুন নাহার, ডা: নুশরাত জাহান, ডা: মালিহা নুঝাত। উপজেলা শিক্ষা প্রশাসনে রয়েছেন ২ নারী। তারা হলেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফজিতালুন নেছা ও উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের প্রশিক্ষক সাবিনা শার্মিন। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হিসেবে রোমানা ইয়াসমিন ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসে উপ-সহকারী প্রকৌশলী রোমানা জান্নাত দায়িত্ব পালন করছেন। উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা হিসেবে হরিদাসি রানী সাহা ও প্রশিক্ষক (টিআই) হিসেবে আলেয়া বেগম, উপজেলা সহকারী প্রোগ্রামার সাইমুন শাহনাজ সোনিয়া দায়িত্ব পালন করছেন।

উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ পদে থাকা এই নারী কর্মকর্তারা জানান, দেশের উন্নয়নকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সামাজিক সমস্যা দূরীকরণে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে এবং তাদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। মাঠ প্রশাসনের কাজের সমন্বয় ও তদারকি, জেলার সঙ্গে সমন্বয় করে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছেন তারা। স্ব স্ব উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির দেখভালও করতে হয় তাদের। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের তদারকি এবং বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখছেন।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফজিলাতুন নেছা বলেন, উপজেলার জনপ্রতিনিধি সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করায় কোনও সমস্যার সৃষ্টি হয় না। কাজের ক্ষেত্রে পুরুষ শিক্ষা কর্মকর্তার চেয়ে নারীরা কোনও অংশে পিছিয়ে নেই। সমান তালে কাজ করে যাচ্ছে। নারী হিসেবে কাজ করতে গিয়ে কোনও সমস্যা হচ্ছে না। নারী শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে কাজের ক্ষেত্রে আমরা সফল।’

উপ-সহকারী প্রকৌশলী রোমানা জান্নাত বলেন, ‘কাজ করতে গেলে অবশ্যই চ্যালেঞ্জ থাকে। জনপ্রতিনিধি, জনগণ ও অফিসারসহ সবাইকে সঙ্গে নিয়ে চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করি এবং সরকারি নীতিমালার আলোকে কাজগুলো করি। প্রতিটি কাজেই আমাদের সঙ্গে সাধারণ মানুষ ও জনপ্রতিনিধিরা সম্পৃক্ত। আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করে যাচ্ছি। সরকারি কাজ আমরা সঠিকভাবে করছি, সফল বা ব্যর্থতা জনগণ তাদের মতো করে বুঝবে। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রোমানা ইয়াসমিন বলেন, ‘কর্ম ক্ষেত্রেও নারীরা এগিয়ে আছেন। আর চ্যালেঞ্জিং পেশা এখন নারীরাও গ্রহণ করছেন। এখন বাংলাদেশে প্রত্যেক স্তরেই নারী আছেন। পুলিশে, চিকিৎসায়, শিক্ষায়, সৈনিক ও সীমান্তরক্ষী হিসেবেও নারীরা আছেন। সেক্ষেত্রে আমি বলবো, ক্ষমতায়নের দিক দিয়ে অনেক এগিয়ে গেছেন নারীরা। ব্যবসা ক্ষেত্রেও নারী আছেন। অনেক নারী উদ্যোক্তা, যারা সফলভাবে পুরুষের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ব্যবসা করছেন। তারা সফল হচ্ছেন, কোনও সন্দেহ নেই। নারীরা মাত্র কয়েকটি সাধারণ পেশায় আছেন, এই কথা এখন কেউ বলতে পারবে না। চ্যালেঞ্জিং পেশা এবং জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কর্মক্ষেত্রে সফল হয়েছেন অসংখ্য নারী।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ৯টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে নকলা উপজেলা গঠিত। এ উপজেলায় ১৩ জন নারী সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ সামলাচ্ছেন নারীরা। তারা পুরুষের সমান সমান কাজ করছেন। কোনও প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয় না। তারা যোগ্যতার সঙ্গে কাজ করে সফল হয়েছেন।

 

- Advertisement -
spot_img

অন্যান্য সংবাদ সমূহ

Check out other tags:

জনপ্রিয় সংবাদ স্মূহঃ